TET Exam : টেট পরীক্ষা নিয়ে ফের মামলা, 27টি প্রশ্ন ভুলের অভিযোগ দায়ের কলকাতা হাইকোর্টে

TET Exam : ফের টেট পরীক্ষা নিয়ে সরগরম পশ্চিমবঙ্গে। কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ রাজ্যের মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন (The West Bengal Madrasah Service Commission)। বড়সড়ো প্রশ্নচিহ্নের মুখে মাদ্রাসা টেট পরীক্ষার প্রশ্নপত্র! আবারো প্রশ্নপত্র ভুলের অভিযোগ উঠেছে। একটি নয়, দুটি নয় প্রায় ২৭টি প্রশ্ন ভুলের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ করেছে মাদ্রাসা টেট পরীক্ষার্থীদের একাংশ। গত শুক্রবার তাঁরা এই নিয়ে মামলা দায়ের করেছে কলকাতা হাইকোর্টে। তাঁদের দাবি প্রশ্নপত্রে যে সমস্ত প্রশ্নের উল্লেখ রয়েছে সেগুলো সম্পূর্ণ নন সিলেবিক।

TET Exam

TET Exam নিয়ে দায়ের করা মামলার বিস্তারিত তথ্য :-

গত বছর মে মাস থেকে মাদ্রাসা শিক্ষক নিয়োগের জন্য অনলাইন আবেদন জমা নেওয়া হয়। জমা নেয় মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন। চলতি বছরের ২৮শে জানুয়ারি পরীক্ষাও নেওয়া হয়। দেশের কোন টেট পরীক্ষায় (TET Exam) সর্বপ্রথম কোন নেগেটিভ মার্কিং করা হয় বলেও অভিযোগ উঠেছে। সে ক্ষেত্রে এন সি টি ইর নির্দেশ উপেক্ষা করা হয়েছে বলেও দাবি করা হয়। পরীক্ষায় ২৭ থেকে ২৮টি ভুল প্রশ্নের দাবিও করা হয়। কমিশন প্রদত্ত সিলেবাস অনুসরণ করা হয়নি মাদ্রাসা টেটের (Primary TET) প্রথম ভাষা এবং দ্বিতীয় ভাষা বিভাগের প্রশ্নে। দাবি করা হয় শিশু মনোবিজ্ঞান থেকে একটি প্রশ্নও আসেনি। গল্প কবিতার বোধগম্যতার প্রশ্নের ক্ষেত্রেও সিলেবাস অনুসরণ করেননি মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন। পরীক্ষার্থীরা বেজায় অসন্তুষ্ট এই নিয়ে। তাঁরা আরো দাবী করেন নবম, দশম, একাদশ দ্বাদশ ও শ্রেণির বাংলা এবং ইংরেজি সিলেবাস থেকে প্রায় ২৭টি প্রশ্ন টেটের (TET Exam 2024) প্রশ্নপত্রে রয়েছে।

আরও পড়ুন : Madhyamik 2024 Result : কবে দেবে মাধ্যমিক পরীক্ষার রেজাল্ট? প্রকাশ্যে সম্ভাব্য তারিখ

সমস্ত বিষয়টি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বিশ্লেষণ করেছেন মাদ্রাসা চাকরিপ্রার্থীদের একাংশ এবং শেষ পর্যন্ত তাঁরা আইনজীবী শামীম আহমেদ এবং আইনজীবী সব্যসাচী চ্যাটার্জির মাধ্যমে কলকাতা হাইকোর্টে (Kolkata High Court) শরণাপন্ন হয়েছেন। মহামান্য হাইকোর্ট তাদের আবেদন মঞ্জুর করেছেন। যদিও তাঁদের বক্তব্য পরীক্ষা শেষের সাথে সাথেই তাঁরা এই সমস্ত ত্রুটিগুলি ই মেল এবং ডেপুটেশনের মাধ্যমে মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনকে (MSC) জানিয়ে ছিলেন কিন্তু বারংবার জানানো সত্বেও তাঁরা কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় শেষ পর্যন্ত চাকরিপ্রার্থীদের একাংশ বাধ্য হয়েছেন মামলা পথে হাঁটতে। আবেদনপ্রার্থীরা যথেষ্টই আশাবাদী, সঠিক বিচার মহামান্য হাইকোর্ট নিশ্চয়ই করবেন। তাঁরা সুবিচারের আশাতেই হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন। দেশের আইন ব্যবস্থার প্রতি তাদের যথেষ্ট ভরসা রয়েছে। সকলেই আগামী সময়ের অপেক্ষাতেই রয়েছেন, কি রায় দেন মহামান্য কলকাতা হাইকোর্ট। দেশের চাকরিপ্রার্থীদের নিয়ে যেভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে আগামী দিনে তাঁর বিহিত হোক এমনটাই তাঁদের দাবি।

আরও পড়ুন : Madhyamik Result 2024 : মাধ্যমিকের রেজাল্ট নিয়ে বড়ো ঘোষণা শিক্ষা মন্ত্রীর, সতর্কবার্তা দেওয়া হল শিক্ষক-শিক্ষিকাদের

Leave a Comment

JoinJoin